Vivo X50 Pro নামক এক ফ্লাগশিপের বিস্তারিত।

হ্যালো জনগণ। কেমন আছেন আপনারা? ভালো আছেন তো? আজকে চলে এসেছি ভিভো-এর জুনে রিলিজ হওয়া Flagship ফোন Vivo X50 Pro নিয়ে। যেহেতু এটি একটি ফ্ল্যাগশিপ ফোন সেজন্য এর দামও অনেক বেশি, তাই সবাই নড়েচড়ে বসুন। চলুন শুরু করি-

বডি এবং নেটওয়ার্ক

এই ফোনের বডি ডাইমেনশন হচ্ছে 158.5 x 72.8 x 8 mm. ১৮১ গ্রাম ওজনের এই ফোন সবটাই গ্লাস বিল্ডের। সেজন্য প্রিমিয়ামনেস এর কোন কমতি থাকবে না। সামনে ব্যবহার করা হয়েছে গরিলা গ্লাস ৫ এবং পিছনে ও আছে গ্লাস প্রটেকশন। ফ্রেম হিসেবে আছে অ্যাালুমিনিয়াম। অ্যালুমিনিয়াম আর গ্লাস কম্নিনেশন মানেই প্রিমিয়ামনেস।

এবং এতে আছে ডুয়াল ন্যানো সিম স্লট। যার ফলে আপনি একই সাথে দুইটা ন্যানো সিম ব্যবহার করতে পারবেন। এবং দুটি সিমেই এক সাথে ৪জি ব্যবহার করা যাবে। যার নেটওয়ার্ক টাইপ গুলো হল GSM/HSPA/LTE/৫জি। এবং এই ফোন ৫জি সাপোর্টেড।

ডিসপ্লে

ফ্লাগশিপ ফোন আর ভালো ডিসপ্লে দিবে মা তা কি করে হয়। এই ফোনেও ব্যবহার করা হয়েছে এমোলেড ডিসপ্লে । ৬.৫৬ইঞ্চি এই ডিপ্লে প্রায় ৯১% স্ক্রিন দখল করে আছে। অর্থাৎ বেজেললেস ডিসপ্লেই বলা চলে। এর রেজুলেশন হচ্ছে ১০৮০*২৩৭৬ , ডেন্সিটি ৩৯৮ পিপিয়াই। HDR10+ এবং ৯০Hz ডিসপ্লে হওয়ায় এর ডিসপ্লে কোয়ালিটি পৌছে গেছে এক অন্য মাত্রায়। স্ট্রিমিং করতে পারবেন কোন ঝামেলা ছাড়াই।

চিপসেট এবং প্ল্যাটফর্ম

ভিভো X50 Pro তে ব্যবহার করা হয়েছে নতুন রিলিজ হওয়া স্ন্যাপড্রাগনের ৫জি প্রসেসর ৭৬৫জি। তাই বলা য্যয় এর পারফর্মেন্স নিয়ে না ভাবলেও চলবে। ৭ন্যানোমিটারে প্রসেসর অনেক পাওয়ার ইফিশিয়েন্ট। সাথে পাবেন এর অভারক্লক করা পার্ফরমেন্স। অ্যাান্ড্রয়েড ১০বেইসড ফানটাচ ১০.৫ দিয়ে চলবে এই ফোন। এই ফানটাচ এতোটা ভালো না হলেও এতোটা খারাপাও না।

ক্যামেরা

এবার চলে আসা যাক ক্যামেরা সেকশনে। Vivo X50 Pro এ আছে কোয়াড ক্যামেরা সেটাপ। চার চারটি ক্যামেরা নিয়ে এর পিছন ভর্তি। প্রাইমারী হিসেবে থাকছে ৪৮মেগাপিক্সেলের ওয়াইড ক্যামেরা। পেরস্কোপ টেলিফটো হিসেবে থাকছে ৮এম্পি ক্যামেরা। পোর্ট্রেইট হিসেবে থাকছে ১৩ মেগা এবং আল্ট্রাওয়াইড হিসেবে আছে ৮এমি ক্যামেরা। মজার বিষয় হচ্ছে ৪৮এম্পি তে ব্যবহার হয়ে গিম্বল OIS. মানে অন্য লেভেলের স্ট্যাবিলাইজার পাবেন ভিডিও করার সময়। ভিডিও করতে পারবেন ৪কে তে। আর এর ক্যামেরা সেটাপও অনেক সুন্দর এবং ক্লিন। যা দেখলেই একটা প্রিমিয়াম ফিল দেয়।

ফ্রন্ট সেকশনে থাকছে ৩২মেগাপিক্সেলে ক্যামেরা। HDR সাপোর্টেড। ফ্রন্ট ক্যামেরার পজিশনও খুব ক্লিন।

মেমোরী

এই ফোনের র‍্যাম হিসেবে থাকছে ৮জবি, এবং ইন্টার্নাল স্টোরেজ হিসেবে থাকছে UFS 2.1 সমৃদ্ব ১২৮/২৫৬জিবি।

ব্যাটারী

Vivo X50 Pro তে আছে Li-Po 4315 mAh, non-removable ব্যাটারী। প্রসেসর অনেক পাওয়ার এফিশিয়েন্সি হওয়াত এই ব্যাটারীই যথেষ্ট দুইদিন ব্যাকাপ দেওয়া জন্য। আর হেভী গেমিং করলে ১দিন অনায়াসেই চলে যাবে। ৩৩ওয়াটের ফাস্ট চার্জিং দিয়ে ৫৭% চার্জ করতে পারবেন ৩০মিনিটে। সো চিল।

সাউন্ড, কানেক্টিভিটি এবং ফিচার্স

এই ফোনে ব্যবহার করা হয়েছে লাউডস্পিকার এবং ৩.৫এমএম অডিও জ্যাক। যার কারনে আপনি যেকোন ইয়ারফোন/হেডফোন ব্যবহার করতে পারবেন কোন ঝামেলা ছাড়াই। আর ওয়াই-ফাই হিসেবে থাকছে ডুয়াল ব্যান্ড। যার কারনে আপনি ৫গিগাহার্টজ ব্যান্ডের ওয়াই-ফাই ব্যবহারের সুবিধাও নিতে পারবেন। এবং এতে ওটিজি ব্যবহার করা হয়েছে। নেই বিল্ট-ইন এফএম রেডিও, সাথে জিপিএস। এবং টাইপ-সি পোর্ট। এবং এক্সট্রা ফিচার্স হিসেবে আছে accelerometer, gyro, proximity, compass সেন্সর সমূহ। এর ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সরটি আছে ডিসপ্লে এর নিচে। অর্থাৎ অপটিক্যাল ফাইবার দ্বারা রিড নিবে সেন্সরটি।

ফ্লাগশিপ ফোন বিধায় সবকিছুই ফ্লাগশিপ লেভেলের। সো যাফের ইচ্ছা ভিভোর ফ্লাগশীপ ফোন ইউজ করার, তারা এই ফোন নিতে পারেন। গেমিং , মাল্টি-টাস্কিং, ফটোগ্রাফি সব কিছুই কোন রকম পেইন ছাড়া হয়ে যাবে।

Dark Blue, Light Blue এই দুইটি কালার ভ্যারিয়েন্টে পাওয়া যাবে এই ফোনটি।

যাইহোক কোন কিছু জানতে চাইলে কমেন্ট করতে পারেন। অথবা ফেসবুকে আমার সাথে যোগাযোগ করতে পারেন টেক রিলেটেড যেকোন কিছু জানাত জন্য।

আমার অন্য ফোনের আর্টিকেল পড়তে চাইলে ক্লিক করুন।

আমাকে ফেসবুকে ফলো করতে চাইলে ক্লিক করুন এখানে।

ভালো থাকবেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here