Samsung Galaxy M10 নামক একটি মিড বাজেটের ফোনের গল্প-

হ্যালো বন্ধুরা? কেমন আছেন সবাই? গতকালকে আমি শেষ করেছি মিড সিরিজের পর্ব। কিন্তু আজকে আলোচনা করবো লো-মিড বাজেটের ফোন Samsung M10 নিয়ে। যাদের বাজেট খুব টাইট, বাট সামসাং-এর ফোন ব্যবহার করতে চাচ্ছেন,এই ফোনটি হতে পারে তাদের জন্য ভালো চয়েস। তো চলুন শুরু করি আজকে পর্ব-

বডি এবং নেটওয়ার্ক

Samsung Galaxy M30s এই ফোনের বডি ডাইমেনশন হচ্ছে 155.6 x 75.6 x 7.7 mm. ১৬৩ গ্রাম ওজনের এই ফোনটি পুরোটাই প্লাস্টিক বিল্ডের। আগের মিড বাজেটের ফোন থেকে এর ওজন অনেকটাই কম। সেজন্য হাতে নিয়ে তেমন কোন অসুবিধা ফিল করবেন না আশা করি। এর সামনে আছে গরিলা গ্লাস। আর পিছন এবং ফ্রেম প্লাস্টিকের।  বলে রাখা ভালো কোন গরিলা গ্লাস ব্যবহার করা হয়েছে তা কিন্তু বলা হয় নি অফিসিয়ালভাবে। লো বাজেটে প্লাস্টিক বিল্ড ছাড় আর কিই বা আশা করা যায়।

এতে আছে ডুয়াল ন্যানো সিম। অর্থাৎ ইন টাইম আপনি ৪জি ব্যবহার করতে পারবেন।

ডিসপ্লে

গরীবের এই ফ্লাগশিপ মানে লো বাজেটের M10 এ ব্যবহার করা হয়েছে PLS TFT স্ক্রিন। মানে সিরিয়াসলি? আইপিএস প্যানেল দিলেও তো পারতো, অহহ ভুলেই ত গেছিলাম এইটা লো বাজেটের ফোন। ৬.২২ ইঞ্চি এই ফোনের রেজুলেশন হচ্ছে ৭২০*১৫২০ পিক্সেল। অর্থাৎ ৭২০পি প্যানেল ব্যবহার করা হইছে এই ফোনে। যার ডেন্সিটি হচ্ছে ২৭০পিপিয়াই।

চিপসেট এবং প্ল্যাটফর্ম

M31 এই ফোনটিতে ব্যবহার করা হয়েছে সামসাং-এর নিজস্ব চিপসেট এক্সিনোস ৭৮৭০ অক্টা(ন্যানো) প্রসেসর। এবং এর ওএস হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে অ্যাান্ড্রয়েড ৮.১ বেইসড One UI। লো বাজেটে যদিও অনেক ভালো প্রসেসর ছিলো, তবুও এই প্রসেসরটি এন্ট্রি লেভেলের প্রসেসর হিসেবে অনেকটাই ভালো বলা চলে। মজার ব্যাপার হচ্ছে এর ওএস আপগ্রেড করা যাবে ৯ পর্যন্ত।

ক্যামেরা

ড্যুয়াল ক্যামেরা সেটাপ মানেই সিম্পল ক্যামেরা সেটাপ। ১৩মেগাপিক্সলের সাথে ৫মেগাপিক্সেলের আল্ট্রা ওয়াইড ক্যামেরা বাম্প নিয়ে পিছনের সেটাপ।

ফ্রন্ট ক্যামেরাতে আছে ৫মেগাপিক্সেল এর সিঙ্গেল ক্যামেরা । সারপ্রাইজিং ব্যাপার হচ্ছে রেয়াল ফ্রন্ট উভয়দিকেই ১০৮০পি ভিডিও করতে পারবেন ৩০এফপিএসে।

মেমোরী

এই ফোনের র‍্যাম হিসেবে থাকছে ২/৩জিবি, এবং ইন্টার্নাল স্টোরেজ হিসেবে থাকছে ১৬/৩২জিবি। ডেডিকেটেড স্লট দিয়ে বাড়াতে পারবেন স্টোরেজ। থাকছে eMMC 5.1 ফিচার।

ব্যাটারী

Samsung Galaxy M10 এ আছে ৩৪০০এমাএইচ এর সিম্পলের মধ্যে গর্জিয়াস বাটারী। এই ব্যাটারী দিয়ে নরমাল ইউজে আরামসেই একদিন চলে যেতে পারবেন।

সাউন্ড, কানেক্টিভিটি এবং ফিচার্স

এই ফোনে ব্যবহার করা হয়েছে লাউডস্পিকার এবং ৩.৫এমএম অডিও জ্যাক। যার কারনে আপনি যেকোন ইয়ারফোন/হেডফোন ব্যবহার করতে পারবেন কোন ঝামেলা ছাড়াই। আর ওয়াই-ফাই হিসেবে থাকছে ডুয়াল ব্যান্ড। যার কারনে আপনি ৫গিগাহার্টজ ব্যান্ডের ওয়াই-ফাই ব্যবহারের সুবিধাও নিতে পারবেন। এবং এতে ওটিজি ব্যবহার করা হয়েছে। নেই বিল্ট-ইন এফএম রেডিও, সাথে জিপিএস। এবং টাইপ-সি পোর্ট। এবং এক্সট্রা ফিচার্স হিসেবে আছে accelerometer প্রক্সিমিটি সেন্সর সমূহ। এতে থাকছে না কোন ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর।

যারা মা-বাবা বা নিজের জন্য সেকেন্ডারি ফোন কিনতে চান, তারা এই ফোনটি নিতে পারেন। নেট ব্রাউজিং, মুভি দেখা সবকিছুতেই ভালো ব্যাকাপ দিবে এই ফোনের ব্যাটারি। শখের বশে ভালো ফটোও তুলতে পারবেন এই ফোন দিয়ে।

Ocean Blue, Charcoal Black এই দুইটি  কালার ভ্যারিয়েন্টে পাওয়া যাবে এই ফোনটি।

যাইহোক কোন কিছু জানতে চাইলে কমেন্ট করতে পারেন। অথবা ফেসবুকে আমার সাথে যোগাযোগ করতে পারেন টেক রিলেটেড যেকোন কিছু জানাত জন্য।

M31 এর বিস্তারিত পড়তে চাইলে ক্লিক করুন।

মাকে ফেসবুকে ফলো করতে চাইলে ক্লিক করুন এখানে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here