অন্যের পক্ষ হতে কুরবানী দিলে হবে কিনা? আসুন জেনেনেই।

এই ব্যাপারে আমরা অনেকেই জানিনা এর ফলে আমরা অনেকেই ভিব্রান্তিতে পরে যাই। এবং না জানার ফলে আমাদের কোরবানি বরবাদ হয়ে যেতে পারে অথবা কুরবানি আদায় নাও হতে পারে এরজন্যই মূলত আজকের আলোচনা থেকে আমরা জানতে পারবো অন্যের পক্ষ হতে কুরবানী দিলে হবে কিনা?

পিতার উপর কুরবানী ওয়াজিব হওয়াতে ছেলে তাঁর নিজস্ব মাল থেকে পিতার পক্ষ হতে কুরবানী করে দিয়েছে এতে পিতার ওয়াজিব আদায় হবে না, পিতা তার নিজস্ব সম্পদ হতে কুরবানী করতে হবে, আর কুরবানীর টাকার বা পশুর মালিক বানিয়ে দিতে হবে ছেলে তার মাল থেকে পিতাকে।

এমনি ভাবে নিজ সম্পদ হতে অন্যের কুরবানী করলে তার কুরবানী আদায় হবে না,সে অনুমতি দিক বা নাই দিক।(আহছানুল ফ: ৭/৫৪০)। ফাতওয়ায়ে আলমগীরী ৫ম খন্ড ৩০২পৃষ্টায় বর্ণিত,

اذا ضحی بشاة نفسه عن غيره يأمر ذلک الغير أولم يأمر الغير الاتجوز لأنه لايكون تجويز التضحية عن الغير الاباثبات

۳۰۲ الملك لذلك الغير. الهندية ج ۵ ص

কোন ব্যক্তি তাঁর পক্ষ হতে কুরবানী করার অছিয়ত করে গিয়েছেন,কিন্তু গরু না ছাগল কুরবানী করবে তা বলে যান নি,এমনকি কুরবানীর টাকার পরিমাণও বলেন নি,তাহলেও অছিয়ত গ্রহনযাগ্য হবে এবং ওয়ারিসদের উপর তার পক্ষ হতে একটি ছাগল কুরবানী করে দেওয়া আবশ্যক।

في الهندية : ولو أوصى بان يضحي عنه ولايسم شاة ولا بقرة وغير ذلك ولم يبين الثمن أيضاجاز ويقع على الشاة.

(১২১/ ৭ ০/১০০/)

মৃত ব্যক্তির অছিয়ত পালিত কুরবানীর গোস্ত ছদকা করে দিতে হয়। ওয়ারিছদের জন্য তা খাওয়া জায়েয হবেনা,যদিও অছিয়তকারী ওয়ারিছদেরকে খাওয়ার জন্য বলে যায়। কিন্তু অছিয়ত ছাড়া কেউ তার নিজ সম্পদ হতে মৃত ব্যক্তির নামে কুরবানী করে তা থেকে খেতে পারবে। (আহছানুল ফা: ৭/৪৯৬)

আহকামে কুরবানী ১৫ এবং টাকার পরিমাণও বলেনি, তাহলে এ ওকালত ছহীহ হয়নি, অর্থাৎ উকীলের জন্য তার মুয়াক্কালের পক্ষ হতে কুরবানী করা ওয়াজিব নয়।।

في الهندية : اذاو کل رجلا بأن يضحي عنه ولم يسم شيئا ولا ثمنا فانه لايجوز. ج ۵ ص ۲۹۸٫

কুরবানী ওয়াজিব হয়ে আছে এমন ব্যক্তি তার নিজস্ব সম্পদ থেকে পশু ক্রয় করে তার মৃত মা, বাবার নামে কুরবানী করেছে, এতে যদি সে নিয়ত করে থাকে তার ওয়াজিব কুরবানীর তাহলে তার ওয়াজিব আদায় হবে, অন্যথায় নয়। (ইমদাদুল মুফতীঈন ৯৫৭)।

একাধিক ভাই মিলে নিজেদের মৃত পিতা অথবা অন্য কোন মৃত ব্যক্তির নামে একটি ছাগল অথবা গরু/মহিষ থেকে এক শরীক কুরবানী করলে ছহীহ হবে না। হ্যা, সবাই মিলে যদি একজনকে কুরবানীর টাকা দান করে দেয় ,অতপর সে এ কুরবানীর কাজ সম্পূর্ণ করে নেয় তাহলে করতে পারে।

কোন ব্যক্তি তার পক্ষ হতে কুরবানী করার জন্য অন্য কাউকে উকিল বানিয়ে দিল অর্থাৎ অন্যের দায়িত্বে দিয়ে দিল,কিন্তু গরু কুরবানী করবে না ছাগল কুরবানী করবে তা বলেনি

আহকামে কুরবানী ১৫ এবং টাকার পরিমাণও বলেনি, তাহলে এ ওকালত ছহীহ হয়নি, অর্থাৎ উকীলের জন্য তার মুয়াক্কালের পক্ষ হতে কুরবানী করা ওয়াজিব নয়।

في الهندية : اذاو کل رجلا بأن يضحي عنه ولم يسم شيئا ولا ثمنا فانه لايجوز. ج ۵ ص ۲۹۸٫

কুরবানী ওয়াজিব এমন ব্যক্তি তার নিজস্ব সম্পদ হতে পশু ক্রয় করে তার মৃত মাতা, পিতার নামে কুরবানী করেছে, এতে যদি সে তার ওয়াজিব কুরবানীর নিয়ত করে থাকে তাহলে তার ওয়াজিব আদায় হবে, অন্যথায় নয়। (ইমদাদুল মুফতীঈন ৯৫৭)।

একাধিক ভাই মিলে নিজেদের মৃত পিতা অথবা অন্য কোন মৃত ব্যক্তির নামে একটি ছাগল অথবা গরু/মহিষ থেকে এক শরীক কুরবানী করলে ছহীহ হবে না। হ্যা, সবাই মিলে যদি একজনকে কুরবানীর টাকা দান করে দেয় ,অতপর সে এ কুরবানীর কাজ সম্পূর্ণ করে নেয় তাহলে করতে পারে। কোন কোন পশু দ্বারা কুরবানী করা যায়।

পড়ুনঃ আদার উপকারিতা দিয়ে খুব গুরত্বপূর্ন ১০টি রোগের ঔষদ তৈরি করুন।

গৃহপালিত উট,গরু,মহিষ,ভেড়া,ছাগল,দুম্বা দ্বারা। কুরবানী করা জায়েয। এগোলুতে ছাড়া অন্য পশু দ্বারা কুরবানী জায়েয নয়।

উটের ক্ষেত্রে ৫বৎসর গরু, মহিষ দু’বৎসর। ছাগল, ভেড়া, দুম্বার ক্ষেত্রে এক বৎসর পূর্ণ হওয়া শর্ত। একদিন কম হলেও জায়েয হবেনা। (কিফায়াতুল মুফতী-৮/১৮৯)

দান, হাদিয়া, শ্বশুরালয় থেকে দেওয়া পশু দ্বারা কুরবানী করা জায়েয এবং এতে নিজের ওয়াজিব কুরবানীও আদায় হবে। (আহছানুল ফা:৭/৪৭৭, কিফায়াতুল মুফতী ৮/১৮৯)

যেই পশু নাপাক খেয়ে থাকে সেই পশুকে কুরবানীর পূর্বে কয়েক দিন বেধে রাখতে হবে যেন নাপাক না খেতে পারে। না হয় কুরবানী জায়েয হবেনা। উটকে ৪০দিন, গরু, মহিষ ২০দিন, ছাগল, ভেড়া, দুম্বা ১০দিন বেধে রাখতে হবে। (ফা: শামী ৫/২০৭,মাছায়েলে কুরবানী ১৪৪)

আমাদের ওয়েবসাইটে আরও পড়তে এখনে ক্লিক অরুণ

আমাদের সেবা নিতে অথবা আমাদের সাথে অসহায় মানুষের পাশে দারাতে এখানে ক্লিক করুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here